অন্যান্য

২.৫ কোটি মানুষের দেশ “উত্তর কোরিয়ার” বিপদে বন্ধু থাকলেও “বাংলাদেশের” বিপদে বন্ধু নেই।

জাতিসংঘের নিয়ম ভেঙ্গে উত্তর কোরিয়া একের পর এক ক্ষেপনাস্ত্র তৈরি করছে, আমেরিকার চাপে জাতিসংঘ ও একের পর এক অবরোধ দিয়ে যাচ্ছে তবুও উত্তর কোরিয়া থেমে নেই কারণ গোপনে তাদের নানান ভাবে সাহায্য করছে চীন ও রাশিয়া। কার্যত উত্তর কোরিয়া অপরাধ করছে, তবুও বন্ধু মিলছে, বন্ধুত্বের পিছনে হয়তো ব্যাবসায়িক লাভ-লোকসানের হিসাব যুক্তি হিসাবে দাঁড় করানো যাবে।

অপরদিকে রোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে আমরা কিছু মানবিক সাহায্য দেওয়ার বন্ধু পাচ্ছি। মিয়ারমারের বিরুদ্ধে জাতিসংঘ কোন রকম কিছু করতেই গেলেই বড় বাঁধা হিসাবে দাঁড়াচ্ছে আমাদের “অতি প্রিয়” দুই বন্ধু চীন ও রাশিয়া অথচ বর্তমানে বাংলাদেশের মেঘা দুই প্রকল্প এই দুই দেশ করছে। তাদের সাথে আমাদের ব্যাবসায়িক বড় লেনদেন থাকার সত্ত্বেও কেন তারা আমাদের পরিবর্তে মিয়ানমার বা উত্তর কোরিয়ার মত দরিদ্র দেশের অন্যায় মেনে নিচ্ছে?

আমার দৃষ্টিতে এর মূল কারণ আমরা বিশ্ব লবিং এ দিন দিন পিছিয়ে যাচ্ছি, আর এই পিছিয়ে পড়ার কারণ হল-আমরা দিনে দিনে মেধাশূন্য জাতি হচ্ছি।

এদেশে ক্রিকেটে, ফুটবলে যে পরিমাণ টাকা ঢালা হয় তার কিছু অংশ যদি গবেষনা কাজে বিনিয়োগ হত, তাহলে হয়তো আমাদের আজকের এই পরনির্ভর জাতি হতে হত না।

Leave a Reply